মানিকগঞ্জে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কোন রোগী সনাক্ত হয়নি –  জেলা প্রসাশক 

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি – আল মামুন 
জেলা প্রসাশক এস. এম ফোরদৌস বলেছেন, মানিকগঞ্জে এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত কোন রোগী সনাক্ত হয়নি। তাই করোনা ভাইরাস নিয়ে জনমনে আতংকিত হবার কোন কারন নেই। মানিকগঞ্জে গেল পাঁচ দিনে বিভিন্ন উপজেলায় বিদেশ ফেরত ২২১ জন ব্যক্তিকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। তার অর্থ এই নয় তারা করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত। তাদের শরীরে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ না থাকলেও বিদেশ ফেরত হওয়ার কারণে তাদেরকে নিজ নিজ বাড়িতে পর্যবেক্ষনে রাখা হয়েছে। সিভিল সার্জন ডা. আনোয়ারুল আমিন আখন্দ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে মানিকগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেলা হাসপাতালের পুরাতন ভবনের দ্বিতীয় তলায় ১২ বেডের আইসোলেশন ইউনিট এবং সদর উপজেলার কেওয়ারজানি এলাকায় আঞ্চলিক জনসংখ্যা প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে ১০০ শয্যার কোয়ারেন্টাইন ইউনিট প্রস্তুত রাখা হয়েছে।
তিনি আরো জানান, পর্যবেক্ষণে থাকারা সম্প্রতি ইতালি, চীন, দক্ষিণ আফ্রিকা, সৌদি আরব ও সিংগাপুর ফেরত। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ১১ সদস্য বিশিষ্ট জেলা কমিটিতে জেলা প্রশাসক সভাপতি ও তিনি (সিভিলসার্জন) সদস্য সচিব। এছাড়াও প্রতিটি উপজেলায় ইউএনওকে সভাপতি ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাকে সদস্য সচিবকে করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। তারা প্রতিনিয়ত পর্যবেক্ষণে থাকা ব্যক্তিদের খোঁজ খবর নিচ্ছেন। এছাড়াও ২৫০ শয্যা জেলা সদর হাসপাতালে ৯ সদস্যবিশিষ্ট কোভিড-১৯ ব্যবস্থাপনা কমিটিও করা হয়েছে। এই কমিটিতে সিনিয়র কনসালটেন্ট (মেডিসিন) ডা. সাকিনা আনোয়ারকে প্রধান করা হয়েছে। হাসপাতালে আইসোলেশন ইউনিটে রোগীদের রক্তের নমুনা সংগ্রহ করা ও তা রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর) পাঠানো এই কমিটির প্রধানতম কাজ। শুক্রবার সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)’র পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, তিনজনের মধ্যে দুজনের পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। অর্থাৎ তাদের শরীরে এখন করোনা ভাইরাস নেই।এক সপ্তাহ আগে দেশে যে তিনজনকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছিল, সুস্থ হয়ে ওঠায় তাদের মধ্যে একজন বাড়ি ফিরে গেছেন। ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে দুটি পরীক্ষায় তাদের রেজাল্ট নেগেটিভ এসেছে। পরপর দুবার তাদের পরীক্ষায় নেগেটিভ আসে। আর পরপর দুবার নেগেটিভ এলে তাদের হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া যায়। সে অনুযায়ী একজনকে ছুটি দেওয়া হয়েছে এবং তিনি বাড়ি চলে গেছেন। আরেকজনের পারিবারিক কিছু বিষয় আছে। সেই বাড়ির আরও কিছু মানুষ কোয়ারেন্টিনে আছেন। পরিবারের আরও একজন হাসপাতালে আছেন। তাদের অনুরোধে তাদেরকে হাসপাতালে রেখেছি। আর তৃতীয় একজনের শরীরে এখনও ভাইরাসের সংক্রমণ রয়ে গেছে। পরীক্ষায় এখন তার রিপোর্ট নেগেটিভ আসেনি বলে জানান আইইডিসিআরের পরিচালক। অধ্যাপক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেন, বাংলাদেশে নতুন করে আর কারও মধ্যে করোনা ভাইরাস পাওয়া যায়নি। আইইডিসিআর সব প্রস্তুতিই নিয়ে রেখেছে। বর্তমানে বিভিন্ন হাসপাতালে মোট আটজনকে ‘আইসোলেশনে’ রাখা হয়েছে। তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ২৪ জনের নমুনা তারা পরীক্ষা করেছেন। সব মিলিয়ে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে মোট ১৮৭ জনের। তবে ওই তিনজন বাদে নতুন করে কারও শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি মেলেনি।মানিকগঞ্জ জেলা প্রসাশন করোনা সম্পর্কে একটি জরুরীবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন।যা নিম্মে দেয়া হল। জরুরি বিজ্ঞপ্তি এতদ্বারা সকলের সদয় অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, পৃথিবীর নানা দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের কারণে বাংলাদেশেও এ রোগের সংক্রমণের আশংকা করা হচ্ছে। এ বিষয়ে আতংকিত হওয়ার কিছু নেই। যথাযথ স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার অনুরোধ করা হলো। পাশাপাশি আপনার পরিবারের অথবা আশপাশের কেউ বিদেশ থেকে ফিরলে তার অবস্থান সম্পর্কে যথাশীঘ্র আপনার উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এবংথানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে তাৎক্ষণিকভাবে জানানোর জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হলো। স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলুন । নিজে এবং অপরকে সুস্থ রাখুন। অনুরোধক্রমে- জেলাপ্রশাসক, মানিকগঞ্জ।
দেশের কন্ঠ২৪.কম/সাকিল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *